প্রতি বছর জর্ডানে নারীদের নিয়ে আন্তর্জাতিক হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।এবার এই প্রতিযোগিতার ১৩তম বর্ষ অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিশ্বের অনেক দেশের নারী হাফেজ এ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে।

অল্প বয়সেই কুরআনের হাফেজ হন দৃষ্টি প্রতিবন্ধি মারিয়াম শাফঈ। এবার বিশ্বের সেরা নারী হাফেজদের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করে ইরানের এই হাফেজ তৃতীয় স্থান লাভ করেছেন।

 

এবারের প্রতিযোগিতা ১৯ মার্চ শুরু হয়ে শেষ হয় গত ২৪ মার্চ। এ প্রতিযোগিতায় ১ থেকে ৫ম স্থান অধিকারী দেশগুলো হলো- আলজেরিয়া, ইন্দোনেশিয়া, ইরান, মিসর ও সৌদি আরব।

জর্ডানের ১৩ তম আন্তর্জাতিক হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতায় এবারের অংশগ্রহণকারী দেশগুলো হলো- আলজেরিয়া, ইন্দোনেশিয়া, ইরান, মিসর, সৌদি আরব, বাংলাদেশ, ভারত, মৌরিতানিয়া, ঘানা, বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা, আজারবাইজান, নরওয়ে, ক্রাক, তানজানিয়া, মালয়েশিয়া, কাতার, প্যালেস্টাইন, জর্ডান, ওমান, সুদান, তুরস্ক, বাহরাইন, মরক্কো, রাশিয়া, তিউনিসিয়া, মিশর, ইরাক, লেবানন, সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং কুয়েতের নারী হাফেজ প্রতিনিধিগণ অংশগ্রহণ করে।

হাফেজ রাইহান আন্তর্জাতিক কিরাত প্রতিযোগিতায় ২য়

কাতার তিঝান আন-নূর বিশ্ব হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতা ২০১৮-এর কিরাত ও হিফজ বিভাগে বিশ্বের ৫১টি দেশের মধ্যে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছে বাংলাদেশের হাফেজ আবু রাইহান। সে ঢাকার উত্তরার তানযিমুল উম্মাহ হিফজ মাদরাসা আত-তাসমি শাখার পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্র।

নেত্রকোনার সন্তান এ কৃতী ছাত্রের বাবার নাম হাফেজ নূরুল ইসলাম ও মায়ের নাম ফাতেমা বেগম। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, তার বাবা দীর্ঘ দিন ধরে নিখোঁজ থাকায় তার মা তাকে অনেক কষ্টে হাফেজ করেছেন।

লেখাপড়ার ক্ষেত্রে তানযিমুল উম্মাহ ফাউন্ডেশনও তাকে অনেক সহযোগিতা করে। সে সবার দোয়াপ্রার্থী।

সূত্রঃডেইলি নয়া দিগন্ত

Comments

comments

SHARE